video video video



দেশে ফিরতে তাসকিনদের টিকিট ধরিয়ে দিল বিসিবি


SPORTSONLY.NET :
18.05.2019

ত্রিদেশীয় সিরিজে যাওয়ার আগে এর-ওর কাছে দোয়া চেয়ে নিয়েছিলেন তাসকিন, যাতে করে বিশ্বকাপ দলেও সুযোগ পান। সবার শুভকামনা নিয়ে ১ মে দলের সঙ্গে আয়ারল্যান্ডে পাড়ি জমান। ৫ মে আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দলের বিপক্ষে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে সুযোগ দেওয়ায় স্বপ্নের পরিধিও বেড়ে যায়। কিন্তু তখন তার জানা ছিল না, এ যাত্রায় শেষ ম্যাচটা তিনি খেলে ফেলেছেন আইরিশ উলভসের বিপক্ষে। সেটা জানতে প্রায় দেড় সপ্তাহ লেগে যায়।

শুক্রবার যখন বিশ্বকাপ স্কোয়াডের বাইরের চার ক্রিকেটারকে দেশে ফেরার বিমানের টিকিট ধরিয়ে দেওয়া হয়, তখনই তাসকিন বুঝে যান এ যাত্রায় হচ্ছে না। বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের ম্যানেজার সাব্বির খান আয়ারল্যান্ড থেকে জানান, প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর সঙ্গে আজ দেশে ফিরছেন ফরহাদ রেজা, তাসকিন আহমেদ, ইয়াসির আলী রাব্বি ও নাঈম হাসান।

এই চার ক্রিকেটারের মধ্যে ফরহাদ ও তাসকিনকে যেভাবে দলে নেওয়া হয়েছিল তাতে মনে হচ্ছিল, তাদের যে কোনো একজন অন্তত বিশ্বকাপ স্কোয়াডে নিশ্চিত জায়গা পাবেন। সেটা তাসকিন হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল, এ দু’জনকে বৃথা স্বপ্ন দেখানো হয়েছে। পুরোটাই ছিল প্রধান কোচ স্টিভ রোডসের খেলার অংশ। তার জোরাজুরিতে বিসিবি একপ্রকার বাধ্য হয়েই তাসকিন, ফরহাদকে স্কোয়াডে সম্পৃক্ত করে।

এতে কার যে কী লাভ হলো, তা জানা নেই। তবে ত্রিদেশীয় সিরিজে চারজন অতিরিক্ত ক্রিকেটার নেওয়ায় বিসিবির কোষাগার থেকে যে প্রায় কোটি টাকা বেরিয়ে গেছে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। লাভের মধ্যে ফরহাদরা দেশে থাকলে রাজশাহীর আমপাকা গরমে হাঁসফাঁস করতেন, ওখানে যাওয়ায় ডাবলিনের ঠাণ্ডা হওয়ায় শরীরটা জুড়িয়ে দেশে ফিরছেন। আর তাসকিন কোনো ম্যাচ না খেলেও বিশ্বকাপ স্কোয়াডে ঢোকার রেস দিতে গিয়ে আবু জায়েদ রাহিকে দলে পাকাপোক্ত করে দিয়ে এসেছেন।

তাসকিন ও রাহিদের পথ আলাদা হয়ে দুটি দিকে মোড় নিয়েছে, বিশ্বকাপ স্কোয়াডের সদস্যরা যাচ্ছে ইংল্যান্ডের লেস্টারশায়ারে কন্ডিশনিং ক্যাম্পের তাঁবুতে, আর অতিরিক্ত চারজন মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর সহযাত্রী হয়ে দেশের বিমানে উঠেছেন।

তবে মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান ইয়াসির আলী জাতীয় দলে নাম তুললেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারের স্বীকৃতিটা পেলেন না। ত্রিদেশীয় সিরিজে কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ না দেওয়ায় আয়ারল্যান্ড ভ্রমণের অভিজ্ঞতাটুকুই তার সম্বল। অফস্পিনার নাঈম হাসানের আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা হয়েছে আগেই। এবার ম্যাচ খেলার সুযোগ পেলে সান্ত্বনা নিয়ে ফিরতে পারতেন। কী মনে করে সে সুযোগটাও তাকে দেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। এখন এই ভেবে চারজন এই ভেবে সান্ত্বনা পেতে পারেন, পরিবার নিয়ে অন্তত ঈদটা করতে পারবেন।

 



Copyright © 2019 sportsonly.net